মাদকদ্রব্য ও এজাতীয় হারাম বস্তুর ব্যবসার বিধান

প্রশ্নঃ

بسم الله الرحمن الرحيم

السلام عليكم ورحمة الله وبركاته ..

মাদকদ্রব্য ও এ জাতীয় হারাম কোন বস্তুর ব্যবসার হুকুম কী? যদি তা শুধু কাফেরদের সঙ্গে করা হয় এবং তাঁর লভ্যাংশ জিহাদের কাজে ব্যয় করা হয়।

উত্তরঃ

الحمد لله والصلاة والسلام على رسول الله..

মাদকদ্রব্য ও এজাতীয় হারাম কোন বস্তুর ব্যবসা কোন অবস্থাতেই বৈধ নয়। যদিও তা কেবল কাফেরদের সঙ্গে করা হয় এবং ভাল নিয়তে করা হয়। এটা বরং অন্যায় ও নাফরমানির কাজে সহায়তা করারই নামান্তর, যা ইসলামে নিষিদ্ধ।

 

আল্লাহ তাআলা এরশাদ করেন,

وَلَا تَعَاوَنُوا عَلَى الْإِثْمِ وَالْعُدْوَانِ وَاتَّقُوا اللَّهَ إِنَّ اللَّهَ شَدِيدُ الْعِقَابِ

অর্থঃ তোমরা পাপ ও সীমালঙ্ঘনের ব্যাপারে একে অন্যের সহযোগীতা করো না। আর আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ কঠোর শাস্তিদাতা। (সুরা মায়েদাঃ২)

 

অন্যত্র এরশাদ করেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا أَنْفِقُوا مِنْ طَيِّبَاتِ مَا كَسَبْتُمْ وَمِمَّا أَخْرَجْنَا لَكُمْ مِنَ الْأَرْضِ وَلَا تَيَمَّمُوا الْخَبِيثَ مِنْهُ تُنْفِقُونَ وَلَسْتُمْ بِآخِذِيهِ إِلَّا أَنْ تُغْمِضُوا فِيهِ وَاعْلَمُوا أَنَّ اللَّهَ غَنِيٌّ حَمِيدٌ ).

অর্থ: হে ঈমানদারগণ! স্বীয় উপার্জন থেকে এবং যা আমি তোমাদের জন্যে ভূমি থেকে উৎপন্ন করেছি, তা থেকে উৎকৃষ্ট বস্তু ব্যয় কর। তার এমন নিকৃষ্ট অংশটি ব্যয় করতে মনস্ত করো না, যা তোমরা নিজেরা গ্রহণ করতে রাজি হবে না, তবে যদি চোখ বন্ধ করে নাও। জেনে রেখ, অমুখাপেক্ষী ও প্রশংসিত। (সুরা বাকারাঃ২৬৭)

عن أبي هريرة قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: ( إن الله تعالى طيب لا يقبل إلا طيبا وإن الله أمر المؤمنين بما أمر به المرسلين فقال تعالى: ( يَا أَيُّهَا الرُّسُلُ كُلُوا مِنَ الطَّيِّبَاتِ وَاعْمَلُوا صَالِحًا إِنِّي بِمَا تَعْمَلُونَ عَلِيمٌ). وقال تعالى: ( يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آَمَنُوا كُلُوا مِنْ طَيِّبَاتِ مَا رَزَقْنَاكُمْ). ثم ذكر الرجل يطيل السفر أشعث أغبر يمد يديه إلى السماء يا رب يا رب ومطعمه حرام ومشربه حرام وملبسه حرام وغذي بالحرام فأنى يستجاب له) رواه مسلم.

অর্থ: হযরত আবু হুরায়রা রাযিঃ থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ পবিত্র, তিনি পবিত্র জিনিসই কবুল করেন। তিনি মুমিনদেরকে তাই নির্দেশ দিয়েছেন যা রসূলদেরকে দিয়েছেন ,

আল্লাহ তা’আলা এরশাদ করেন,

يَا أَيُّهَا الرُّسُلُ كُلُوا مِنَ الطَّيِّبَاتِ وَاعْمَلُوا صَالِحًا إِنِّي بِمَا تَعْمَلُونَ عَلِيمٌ

অর্থঃ ) হে রাসূলগণ! আপনারা পবিত্র বন্তু আহার করুন এবং সৎকর্ম করুন। নিশ্চয়ই আপনারা যা কিছু করেন সে বিষয়ে আমি পরিজ্ঞাত। (সুরা মুমিনূনঃ ৫১)

তিনি আরো  এরশাদ করেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آَمَنُوا كُلُوا مِنْ طَيِّبَاتِ مَا رَزَقْنَاكُم

অর্থঃ : হে ঈমানদারগণ! তোমরা আমার দেওয়া পবিত্র বস্তুসমূহ থেকে খাও। (সুরা তহাঃ ৮১)

এরপর তিনি এমন এক ব্যক্তির কথা বললেন, যে দীর্ঘ ভ্রমন করে ঊস্কু খুসকু চুল ও ধূলি মলিন শরীর নিয়ে আকাশের দিকে দু’হাত তুলে ইয়া রব! ইয়া রব!ডাকতে থাকে। কিন্তু তাঁর পানাহার হারাম ,পোশাক হারাম, রিযিক হারাম, অতএব কিভাবে তাঁর দো’আ কবুল হবে? (সহীহ মুসলিম)

এ জাতীয় ব্যবসায় লিপ্ত ব্যক্তির কর্তব্য হল, প্রথমে তাওবা করা, অতঃপর ব্যবসায় থেকে অর্জিত লভ্যাংশ জিহাদের ফান্ডে দান করা কিংবা গরীব-মিসকিনদের মাঝে ব্যয় করা ।

এটা যদিও সদকা হিসেবে গণ্য হবে না, তবে এটাই এজাতীয় সম্পদের সর্বোত্তম খাত। والله أعلم

 

উত্তর প্রদান কারী:

শাইখ আবূ মুহাম্মদ মাকদিসী

সদস্য, আল-লাজনাতুশ শরীইয়্যাহ

মিম্বারুত তাওহীদ ওয়াল জিহাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *