ইউসুফ আল কারদাবিঃ তার পরিচয় ও চিন্তাধারার পর্যালোচনা

প্রত্যেক বিচ্যুতির একটি মূল থাকে।” আর আধুনিক সময়ের মর্ডানিস্ট এবং বিশেষ করে মডারেটদের বিচ্যুতির মূল হল এ ব্যক্তি – ইউসুফ আল-কারদাবি।

মর্ডানিস্ট বলুন কিংবা মডারেট বলুন আধুনিক সময়ের ফিরকাগুলো তাত্ত্বিক ও আদর্শিক ভাবে এক ব্যক্তির কাছে কৃতজ্ঞ। কাফিরের সংজ্ঞা, আল ওয়ালা ওয়াল বারা, হুদুদ, ফ্রি-মিক্সিং, সঙ্গীত, হাদীসের মনগড়া ব্যাখ্যা, কোন শার’ই বিধানকে বর্তমান সময়ে অপ্রযোজ্য ঘোষণা করা, ব্যাঙ্কিং, জিহাদ, আক্বিদাসহ ইসলামের যেসব বিষয়ে ক্রুসেডাও ও যায়নিস্টদের অ্যালার্জি আছে তার সবগুলোর ক্ষেত্রেই মর্ডানিস্ট ও মডারেট – দু দলই একজন ব্যক্তিকে কমন রেফারেন্স পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার করে।

তিউনিশিয়ার রাশিদ ঘান্নুসি থেকে শুরু করে আল ওয়ালা ওয়াল বারার সংজ্ঞা উল্টে দেওয়া জনপ্রিয় পশ্চিমা ‘স্কলার’-দা’ঈ-বক্তা, কিংবা বাংলাদেশে বিভিন্ন কথার মারপ্যাঁচ দিয়ে ফ্রি-মিক্সিংকে উস্কে দেওয়া, ফিকহের পরিভাষা ব্যবহার করে পাঠক-শ্রোতা বিভ্রান্ত করে ব্যক্তিকেন্দ্রিক, গা বাঁচানো বাছাবাছির আর সুবিধাবাদী এক ইসলামের দাওয়াত দেওয়া বিভিন্ন সেলিব্রিটি দা’ঈরা পর্যন্ত – সকলেই জ্ঞাতসারে বা অজান্তে আল-কারদাবির তৈরি করা আদর্শিক ভিত্তি ও কাঠামোর উপর দাড়িয়েই নিজ নিজ ব্র্যান্ডের গোমরাহির প্রচারনা চালায়।

কারন দেশে কিংবা বিদেশে যারাই বর্তমানে বিভিন্ন গোমরাহিকে ইসলামের পোষাক পড়িয়ে জায়েজ করতে চাইছে – সেটা গনতন্ত্রকে বৈধতা দেওয়া, জিহাদের ভুল ব্যাখ্যা করা, সঙ্গীতকে জায়েজ বলা, ফ্রি-মিক্সিংকে উৎসাহিত করা, নিক্বাবের বিরোধিতা করা, দাড়ি কামানোকে জায়েজ বলা, মুসলিমদের বিরুদ্ধে কাফিরদের সাহায্য করাকে বৈধতা দেওয়া, যেটাই হোক না কেন – তারা সবাই ঘুড়িয়ে ফিরিয়ে আল-কারদাবির শেখানো ‘যুক্তিকেই’ উপস্থাপন করছে।

আর বর্তমানে আমাদের দেশেও এ প্রবণতা আশংকাজনকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দুঃখজনকভাবে বাংলাদেশের আলিম সমাজ ও তালিবাতুল ইলমের মধ্য অধিকাংশই এ এ ব্যক্তির গোমরাহির তীব্রতা এবং এসব ফিরকার অস্তিত্ব ও প্রসারের ক্ষেত্রে তার ভূমিকা সম্পর্কে পূর্ণ ধারনা রাখেন না। একারনেই বিশেষভাবে আল-কারদাবির বিষাক্ত ধ্যানধারনা সাধারন মুসলিমদের সামনে উপস্থাপন করা এবং সেগুলোর অপনোদন করা বর্তমানে অপরিহার্য হয়ে দাড়িয়েছে।

মূলত এ প্রয়োজনীয়তাকেই মাথায় রেখে আমাদের এ প্রচেষ্টা। “ইউসুফ আল-কারদাবি ও তার ধ্যানধারনার পর্যালোচনা” শীর্ষক প্রবন্ধে সংক্ষিপ্ত পরিসরে এ ব্যক্তির গোমরাহির বাস্তবতা তুলে ধরা হয়েছে। এ প্রবন্ধটি সর্বপ্রথম “নিদা আত-তাওহিদ” নামক কমিউনিটি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। পরবর্তীতে বিখ্যাত আত-তিবইয়্যান ফোরাম লেখাটি প্রকাশ করা হয়।

লেখাটির গুরুত্ব ও বর্তমানের আমাদের দেশীয় প্রেক্ষাপট বিবেচনায় আমরা লেখাটি অনুবাদের সিদ্ধান্ত নেই। আল্লাহ এ প্রবন্ধের সংকলকদের উত্তম প্রতিদান দান করুন, এবং বাংলা ভাষাভাষী পাঠকের সামনে এ প্রবন্ধ তুলে দেওয়ার আমাদের এ প্রচেষ্টা কবুল করুন।

আশা করি সচেতন মুসলিম ভাই ও বোনেরা এ আলোচনা থেকে উপকৃত হবেন, আল-কারদাবি এবং তার শিষ্য মর্ডানিস্ট ও মডারেটদের গোমরাহি ও ফিতনা সম্পর্কে সতর্ক হবেন, এবং অন্যান্যদেরকেও সতর্ক করতে সমর্থ হবেন।

সালাত ও সালাম বর্ষিত হোক আমাদের নবী মুহাম্মাদ ﷺ তার পরিবার ও তার সাহাবীদের উপর।

ডাউনলোড লিঙ্ক ১

ডাউনলোড লিঙ্ক ২

ডাউনলোড লিঙ্ক ৩

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *